ষষ্ঠ শ্রেণির ৫ম সপ্তাহের বিজ্ঞান অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২২

ষষ্ঠ (৬ষ্ঠ) শ্রেণির  বিজ্ঞান অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান  ২০২২

ষষ্ঠ শ্রেণির ৫ম সপ্তাহের বিজ্ঞান অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২২ আপনি যদি ৫ম সপ্তাহের ষষ্ঠ (৬ষ্ঠ) শ্রেণির  বিজ্ঞান স্টাডিজ  সন্ধান করছেন, আমরা আপনার জন্য এখানে আছি বিশেষজ্ঞের সহায়তায় আমরা শিক্ষার্থীদের জন্য সর্বোত্তম বিজ্ঞান উত্তর সরবরাহ করি।

আপনার  বিজ্ঞান অ্যাসাইনমেন্টটি সম্পূর্ণ করতে, আমাদের প্রদত্ত উত্তর আপনাকে আপনার একটি লেখার ক্ষেত্রে অনেক সহায়তা করবে। প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর বিবরণ এবং ভাল মার্ক পাওয়ার জন্য সেরা।

class 6 Science assignment answer 2022

ষষ্ঠ (৬ষ্ঠ) বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সম্পর্কিত সকল তথ্য আমাদের এখানে বিস্তারিত আকারে আলোচনা করা হয়েছে। সুতরাং আপনি যদি বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সম্পর্কিত কোন তথ্য জানতে চান,

তাহলে আমাদের পোস্টটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত খুব ভালভাবে পড়ুন। তাহলে আশা করা যায় ক্লাস ষষ্ঠ (৬ষ্ঠ) বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সম্পর্কে সকল তথ্য আপনি আমাদের এই পোস্ট থেকে জানতে পারবেন।

class 6 Science assignment answer 5th week 2022 

যে যেহেতু প্রত্যেক শিক্ষার্থী তাদের নির্ধারিত অ্যাসাইনমেন্ট বিদ্যালয় জমা দিয়ে পরবর্তী ক্লাসে উত্তীর্ণ হবে। সুতরাং আমি বলতে পারি যে, ক্লাস ষষ্ঠ (৬ষ্ঠ) এর শিক্ষার্থীদের জন্য এই অ্যাসাইনমেন্ট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

কারণ এই অ্যাসাইনমেন্ট আপনার বিদ্যালয় জমা দিলেই আপনি পরবর্তী ক্লাসে উত্তীর্ণ হতে পারবেন।

ষষ্ঠ (৬ষ্ঠ) শ্রেণির  বিজ্ঞান অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২২ | ৫ম সপ্তাহ

শিক্ষার্থীরা সবসময় ইন্টারনেটে দেওয়া উত্তরটি হুবহু লেখে শিক্ষকের নিকট জমা দেন। এভাবে উত্তর জমা দেওয়া মোটেও ভাল কাজ নয়। আপনারা অবশ্যই আমাদের দেওয়া উত্তরটি ভালোভাবে পড়ে নিজের মতো করে ধারনা নিয়ে তারপরে লিখে তার শিক্ষকের নিকট জমা দিন।

এতে করে আপনি সম্পূর্ণ নম্বর পাওয়ার যোগ্যতা অর্জন করবেন। আশা করি পরবর্তী সপ্তাহ থেকে আমাদের নির্দেশনাগুলো মেনে ভালো নম্বর পাওয়ার লক্ষ্যে আমাদের ওয়েবসাইটের উত্তরটি দেখে নিজের মতো করে লিখবেন এবং সম্পূর্ণ নাম্বার পাওয়ার পর আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাবেন।

৬ষ্ঠ শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট ৫ম সপ্তাহ উত্তর ২০২২
বিষয়ঃ বিজ্ঞান

শিরোনাম : সংবেদি অঙ্গসমূহের গঠন , কাজ এবং এর যত্নে সচেতনতা

৬ষ্ঠ শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট ৫ম সপ্তাহ ২০২২

 

(খ) নং প্রশ্নের উত্তর

নিচে চোখের লেন্স , রেটিনা ও আইরিশের যথাযথভাবে কাজ বর্ণনা লেন্স : পিউপিলের পেছনে একটি দ্বি – উত্তল লেন্স থাকে। লেন্সটির মাঝখানের দুই দিক উঁচু আর আগাটা সরু।
 
লেন্সটি এক বিশেষ ধরনের সিলিয়ারি পেশি দ্বারা আটকানো থাকে এ পেশিগুলো সংকুচিত ও প্রসারিত হতে পারে। এদের সংকোচন প্রসারণ দরকার মতো লেন্সের আকৃতি পরিবর্তন করতে পারে।
 
রেটিনা : রেটিনা অক্ষিগোলকের সবচেয়ে ভিতরের স্তর। এটি একটি। আলোক সংবেদি স্তর। এখানে রড ও কোন নামে দুই ধরনের কোষ রয়েছে। চোখের লেন্সটি চক্ষু গোলককে সামনে ও পেছনে দুইটি অংশে বিভক্ত করে। এই অংশগুলোকে প্রকোষ্ঠ বলে।
 
সামনের প্রকোষ্ঠে জলীয় এবং পেছনের প্রকোষ্ঠে এক বিশেষ ধরনের জেলীর মতো তরল পদার্থ থাকে , যা চক্ষুগোলকে আলোকরশি প্রবেশ পষ্টি সরবরাহ এবং চক্ষগোলকের আকার বজায় রাখতে সহায়তা করে।
 
আইরিশ : কর্নিয়ার পেছনে কালো গোলাকার পর্দা থাকে। একে আইরিশ বলে। আইরিশের মাঝখানে একটি ছিদ্র থাকে, যাকে পিউপিল বলে। আইরিশ পেশি দিয়ে তৈরি।
 
একে আমরা সাধারণত চোখের মণি বলে থাকি আইরিশের পেশিগুলো সংকুচিত ও প্রসারিত হতে পারে। আইরিশের পেশি সংকোচন প্রসারণের ফলে পিউপিল ছোট বড় হতে পারে। এর ফলে আলোকরশ্মি রেটিনায় প্রবেশ করতে পারে।
 

(গ) নং প্রশ্নের উত্তর

অন্তঃকর্ণ একটি অডিটরি ক্যাপসুল অস্থির মধ্যে অবস্থিত। অন্তঃকর্ণ দুটি প্রধান প্রকোষ্ঠে বিভক্ত।
 
( ক ) ইউট্রিকুলাস : অন্তঃকর্ণের এ প্রকোষ্ঠটি তিনটি অর্ধবৃত্তাকার নালি দিয়ে গঠিত। এদের ভিতরে আছে খুব সূক্ষ্ম লোমের মতো স্নায়ু ও রস। নালির ভিতরের এ রস যখন নড়ে বা আন্দোলিত হয় , উদ্দীপ্ত হয়। আর তখনই সে উদ্দীপনা মস্তিষ্কে পৌঁছায় তখনই স্নায়ুগুলো
 
( খ ) স্যাকুলাস : অন্তঃকর্ণের এই প্রকোষ্ঠের চেহারা অনেকটা শামুকের মতো : প্যাচানো নালিকার মতো। একে ককলিয়া বলে। ককলিয়ার ভেতরে শ্রবণ সংবেদি কোষ থাকে। প্যাচানো নালিকা এক ধরনের রসে পূর্ণ থাকে।
 
কানের যত্ন : কান আমাদের শ্রবণ ইন্দ্রিয় । কানের সমস্যার কারণে আমরা বধির হয়ে যেতে পারি । কানের যত্ন নেওয়ার জন্য যা করতে হবে , তাহলো
 
১। নিয়মিত কান পরিষ্কার করা।
২। গোসলের সময় কানে যেন পানি না ঢোকে সেদিকে সতর্ক থাকা।
৩। কানে বাইরের কোনো বস্তু বা পোকামাকড় ঢুকলে ৪। ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া।
৫। উচ্চ শব্দে গান না শুনা।
 

(ঘ) নং প্রশ্নের উত্তর

হলো জিভ বা জিহ্বা দিয়ে আমরা খাদ্যবস্তুর টক , ঝাল , মিষ্টি , তিতা স্বাদ গ্রহণ করে থাকি। এটা আমাদের স্বাদ ইন্দ্রিয়। নিচে এর কাজ ও যত্ন ব্যাখ্যা করা হলো –
 
জিহ্বার কাজ
 
১৷ খাদ্যের স্বাদগ্রহণ করা।
২। খাবার গিলতে সাহায্য করা।
৩। খাদ্যবস্তুকে নেড়েচেড়ে দাঁতের নিকট পৌঁছে দেয়।
 
৪। ফলে খাদ্যবস্তু চিবানো সহজতর হয়।
৫। খাদ্যবস্তুকে লালার সাথে মিশ্রিত করতে সাহায্য করে।
৬। জিহ্বা আমাদের কথা বলতে সাহায্য করে ।
 
জিহ্বার যত্ন
 
১। খাদ্য পরিপাকের জন্য জিহ্বা একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। জিহ্বার যত্ন নিতে হলে যা করতে হবে।
 
২। দাঁত ব্রাশ করার সময় নিয়মিত জিহ্বা পরিষ্কার করা। শিশুদের নিয়মিত জিহ্বা পরিষ্কার করা উচিত তা না হলে জিহ্বায় ছত্রাকের সংক্রমণ হতে পারে।
৩। অনেক রোগের কারণে জিহ্বার উপর সাদা বা হলদে পর্দা পড়ে। জ্বর হলে সাধারণত এটা হয়। এ সময় পানিতে লবণ গুলে কুলকুচি করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।
 
৪। শিশুদের জিহ্বা নিয়মিত পরিষ্কার না করলে জিহ্বার উপর দইয়ের মতো দেখতে ছোট ছোট দাগ দেখা দেয়। এটা এক প্রকার ছত্রাকের সংক্রমণ থেকে হয়। 
৫। মুখ জিহ্বায় ঘা হলে অতি তাড়াতাড়ি ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।
 

Check Also

সপ্তম শ্রেণির ৫ম সপ্তাহের গণিত অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২২

সপ্তম শ্রেণির ৫ম সপ্তাহের গণিত অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২২ প্রিয় শিক্ষার্থী  আপনি যদি ৫ম সপ্তাহের সপ্তম …

Leave a Reply

Your email address will not be published.